1. hmgrobbani@yahoo.com : admin :
  2. noushaduddin16@gmail.com : nowshad Uddin : nowshad Uddin
  3. news@soroborno.com : Md. Rabbani : Md. Rabbani
  4. nooruddinrasel@yahoo.com : nooruddin rasel : nooruddin rasel
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৪২ পূর্বাহ্ন

ইংলিশ ক্লাবগুলো সরে দাঁড়াল সুপার লিগ থেকে

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২১ এপ্রিল, ২০২১

স্পোর্টস ডেস্ক

রোববার (১৮ এপ্রিল) ইউরোপিয়ান সুপার লিগের আত্মপ্রকাশের পরপরই ক্ষোভে ফেটে পড়ে গোটা ফুটবল বিশ্ব। আর তখন থেকেই চতুর্মুখি চাপের মুখে পড়ে এই লিগ। শুরুটা হয় সমর্থকদের ক্ষোভ দিয়ে, এরপর সাবেক ও বর্তমান খেলোয়াড় আর তার সঙ্গে উয়েফা ও ফিফার চোখ রাঙানি। শেষ পর্যন্ত বিতর্কিত এই প্রতিযোগিতাটি শুরুর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসার দুই দিনের মাথাতেই তা ভেস্তে দিয়ে সরে দাঁড়াল ইংল্যান্ডের সবকটি ক্লাব।

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের পরিবর্তে ইউরোপিয়ান সুপার লিগ আয়োজনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয় বিশ্বের শীর্ষ ১২টি ক্লাব। সুপার লিগের (ইএসএল) প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে ১২টি ক্লাবের কথা জানানো হয় ইএসএলের পক্ষ থেকে। এর মধ্যে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ থেকে রয়েছে ছয়টি ক্লাব: লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটি, আর্সেনাল, চেলসি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও টটেনহাম হটস্পার্স। স্পেন থেকে আছে: রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা ও অ্যালেটিকো মাদ্রিদ। ইতালিয়ান সিরি ‘আ’ থেকে: জুভেন্টাস, ইন্টার মিলান ও এসি মিলান।

এই ১২ ক্লাবের সঙ্গে আরও তিনটি ক্লাব শিগগিরই যোগ দেবে বলে জানায় সুপার লিগ কর্তৃপক্ষ। প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য হিসেবে থাকবে এই ১৫টি ক্লাব।

তবে কঠোর সমালোচনার মুখে পড়ে শেষ পর্যন্ত ইংল্যান্ডের ছয়টি ক্লাব মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) রাতেই অফিসিয়ালি ঘোষণা দেয় তারা সুপার লিগ থেকে নিজেদের নাম প্রত্যাহার করে নিচ্ছে।

ইউরোপিয়ান সুপার লিগের ঘোষণার আসার পর হুমকির মুখে পড়েছে ইউরোপিয়ান ফুটবলের সবচেয়ে মর্যাদাকর টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়নস লিগের অস্তিত্বের। আর তাই তো চ্যাম্পিয়নস লিগকে বাঁচাতে সম্ভাব্য সকল ব্যবস্থায় গ্রহণ করবে উয়েফা। তাই তো সোমবার (১৯ এপ্রিল) জরুরি বৈঠকও ডাকে তারা। বৈঠক শেষে কঠোর হুঁশিয়ারি জানিয়েছে ওই ১২টি প্রতিষ্ঠাতা ক্লাব এবং ক্লাবের ফুটবলারদের।  জরুরি বৈঠক শেষে সেটাই হুশিয়ারির সঙ্গে উচ্চারণ করেন সংস্থাটির সভাপতি।

উয়েফার সভাপতি আলেক্সান্ডার ক্যাফেরিন কড়া হুঁশিয়ারি দিয়ে জানান দিলেন, সুপার লিগে অংশগ্রহণ করলে কোনো খেলোয়াড় জাতীয় দলের হয়ে খেলতে পারবেন না।

মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনো জানান, কোনোভাবেই সুপার লিগকে ফিফা সমর্থন করতে পারে না। ইনফান্তিনো বলেন, ‘এটা আমাদের কাছে পরিস্কার। ফিফা কোনোভাবেই সুপার লিগকে অনুমোদন দিচ্ছে না। তাদের অনুমোদন দেওয়া অসম্ভব। আর এ ব্যাপারে কোনো সংশয় নেই।

এদিকে সমর্থকরা ক্ষোভে ফুঁসে ওঠে শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার রাতে ব্রাইটন অ্যান্ড হোভ অ্যালবিওনের বিপক্ষে ম্যাচের আগেই চেলসির টিম বাস স্টামফোর্ড ব্রিজের বাইরে আটকে দেয়। পরে ক্লাবটির কিংবদন্তি গোলরক্ষক এবং বর্তমান ম্যানেজমেন্টের থাকা পিটার চেক সমর্থকদের অনুরোধ জানায় তাদের কিছু সময় দিতে। এবং এরপরেই তারা স্টেডিয়ামে ঢুকতে পারে। এছড়াও এর আগের দিন সুপার লিগের ঘোষণা আসার সঙ্গে সঙ্গে লিভারপুল সমর্থকরা ক্লাব স্টেডিয়ামের সামনে ক্লাবের জার্সি পুড়িয়ে এর প্রতিবাদ জানিয়েছে। আর ক্লাবের এফিটাফ লিখেও দিয়েছেন অনেকে। এদিকে সংবাদ এসেছে স্পেনের কাতালানে বার্সেলোনার সমর্থকরাও সুপার লিগের বিরোধিতা করেছেন। তারা হেতাফের বিপক্ষে ক্লাবের পরবর্তী ম্যাচে সুপার লিগ বিরোধী ব্যানার নিয়েও নাকি উপস্থিত হবে বলে জানিয়েছে কাতালান কিছু সংবাদমাধ্যম।

মূলত বিশ্বব্যাপী প্রবল সমালোচনা ও বিরোধিতার কারণেই দলগুলো সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে, সুপার লিগের চুক্তির নিয়ম-নীতি কতটা শক্ত, তা পরিষ্কার নয়। তবে মঙ্গলবার পরিস্থিতি যে অনেকটাই পাল্টে গেছে, সেটা স্পষ্ট। কারণ হতে পারে অনেক কিছু; বিশ্বব্যাপী শুরু হওয়া সমালোচনা, আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে দল ও খেলোয়াড়দের নিষিদ্ধ হওয়ার ভয়, রাজনৈতিক চাপ কিংবা দলের খেলোয়াড়দের অভিমত।

More News Of This Category
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি