1. hmgrobbani@yahoo.com : admin :
  2. news@soroborno.com : Md. Rabbani : Md. Rabbani
মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১০:৩৪ পূর্বাহ্ন

প্রজনন স্বাস্থ্যে প্রাধান্যের প্রতিপাদ্যে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১১ জুলাই, ২০২১

ঢাকা: বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে হাজার হাজার প্রাণহানির মধ্যে আজ রোববার (১১ জুলাই) পালিত হচ্ছে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য অধিকার ও পছন্দই মূল কথা, প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার প্রাধান্য পেলে কাঙ্ক্ষিত জন্মহারে সমাধান মেলে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও দিনটি পালন করা হবে।

১৯৮৯ সালে জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির পরিচালনা পরিষদ বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস পালন শুরু করে। পরিবার পরিকল্পনা, লিঙ্গ সমতা, দারিদ্র, মাতৃস্বাস্থ্য এবং মানবাধিকারের মতো জনসংখ্যা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে জনসচেতনতা বাড়ানোই দিবসটির লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য।

জনসংখ্যা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে সচেতনতা তৈরি দিবসটির মূল লক্ষ্য হলেও গত বছর থেকে তা পূরণ হচ্ছে না

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে। গত বছর দিবসটি ঘিরে তেমন কোনো কর্মসূচি পালন করা যায়নি। এবারও নেই তেমন কোনো কর্মসূচি, দিবসটি পালন করা হবে অনাড়ম্বর আয়োজনেই।

দিবসটির সফলতা কামনা করে উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। আর সীমিত পরিসরে দিবসটি পালনে পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতর ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে একটি আলোচনা সভার আয়োজন করেছে। এই আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যুক্ত থাকবেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

এদিকে, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য বলছে, চলতি বছর ২০২১ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত বাংলাদেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৯১ লাখ ১ হাজার। এর মধ্যে নারী ৮ কোটি ৪০ লাখ ৩০ হাজার, পুরুষ ৮ কোটি ৪১ লাখ ৯০ হাজার।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যে আরও দেখা যায়, ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত দেশের জনসংখ্যা ছিল ১৬ কোটি ৮২ লাখ। দেশের মানুষের প্রত্যাশিত আয়ুষ্কাল ৭২ বছর ৮ মাস। এর মধ্যে পুরুষের গড় আয়ু ৭১ বছর ২ মাস, নারীর ৭৪ বছর ৫ মাস। এর আগে ২০১৯ সালে দেশের মানুষের গড় আয়ু ছিল ৭২ বছর ৬ মাস।

বিবিএসের তথ্য অনুযায়ী, জনসংখ্যার স্বাভাবিক বৃদ্ধির হার কিছুটা কমে ১ দশমিক ৩০ জন হয়েছে। আগের বছর এ হার ছিল ১ দশমিক ৩২ জন। এই জনসংখ্যার ৫৪ শতাংশ গ্রামে আর ৪৫ শতাংশ শহরে বাস করছে। তথ্য অনুযায়ী, ২০২০ সালে দেশে ক্ষুল্ল জন্মহার ছিল (প্রতি হাজারে) ১৮ দশমিক ১ জন।

এদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত বছর প্রতি হাজার মানুষের মধ্যে ৫ দশমিক ১ জন মারা গেছে। তবে শিশু মৃত্যুহার অপরিবর্তিত রয়েছে। বর্তমানে প্রতি হাজারে ২১ শিশু মারা যাচ্ছে। অন্যদিকে মাতৃমৃত্যুর হার প্রতি হাজারে ১ দশমিক ৬৩ জন হয়েছে, যা আগের থেকে কমেছে। আগের বছর এই হার ছিল ১ দশমিক ৬৫ জন।

এদিকে বিয়ের গড় বয়স আগের বছরের মতোই ২৪ দশমিক ২ মাস অপরিবর্তিত রয়েছে। আর দেশে জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি ব্যবহার করেন ৬৩ দশমিক ৯ শতাংশ মানুষ।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য বলছে, সাত বছর ও তার চেয়ে বেশি জনসংখ্যার শিক্ষার হার এখন ৭৫ দশমিক ২ শতাংশ। আর ১৫ বছর ও তার চেয়ে বেশি বয়সী জনসংখ্যার শিক্ষার হার ৭৫ দশমিক ৬ শতাংশ।

More News Of This Category
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি