1. hmgrobbani@yahoo.com : admin :
  2. noushaduddin16@gmail.com : nowshad Uddin : nowshad Uddin
  3. news@soroborno.com : Md. Rabbani : Md. Rabbani
  4. nooruddinrasel@yahoo.com : nooruddin rasel : nooruddin rasel
শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০১:০৩ অপরাহ্ন

বাকিটা বাসায় এসে বলছি— কথিত ফোনালাপে স্ত্রীকে মামুনুল

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ৩ এপ্রিল, ২০২১

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে রয়্যাল রিসোর্টে একজন নারীর সঙ্গে অবরুদ্ধ হয়েছিলেন হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক। হেফাজতের স্থানীয় নেতাকর্মীরা পরে ওই রিসোর্টে হামলা চালিয়ে মামুনুলকে ‘উদ্ধার করে’ নিয়ে যান। রিসোর্টে অবরুদ্ধ হওয়ার পর মামুনুল হক তার সঙ্গী নারীর পরিচয় দেন দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে। দুই বছর আগে তাকে বিয়ে করেছিলেন বলেও দাবি করেন।

এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি অডিও ভাইরাল হয়েছে, যেখানে মামুনুল হক তার স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলছেন বলে দাবি করা হচ্ছে। আর সেই অডিওতে মামুনুল তার স্ত্রীকে বলছেন, রিসোর্টে তার সঙ্গী মেয়েটি অন্য আরেকজনের স্ত্রী। ‘পরিস্থিতির চাপে বাধ্য হয়ে’ তাকে মিথ্যা বলতে হয়েছে।

শনিবার (৩ এপ্রিল) বিকেলে সোনারগাঁওয়ের ওই রিসোর্টে অবরুদ্ধ হন মামুনুল। রাতে তাকে ‘উদ্ধার করে’ নিয়ে যান হেফাজত কর্মীরা। এরপর রাত ১০টার দিকে মামুনুল হকের সঙ্গে তার স্ত্রীর কথিত ফোনালাপটি ভাইরাল হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

কথপোকথনটি এরকম—

মামুনুলের স্ত্রী: আসসালামু আলাইকুম।

মামুনুল: ওয়ালাইকুম আসসালাম ওয়া রহমাতুল্লাহ। পুরো বিষয়টা তোমাকে আমি সামনে এসে বলব। ওই মহিলা যে ছিল সাথে ছিল, সে হইলো আমগোর শহিদুল ভাইয়ের ওয়াইফ, বুঝছো? ঐইটা নিয়ে একটা, মানে ওখানে অবস্থা এরকম তৈরি হয়ে গেছে যে এই কথা বলা ছাড়া… ওখানে মানে ওরা ই করে ফেলছিল আমাকে… বুঝছো?

মামুনুলের স্ত্রী: আচ্ছা বাসায় আসেন। তারপরে কথা হবে। যা বলার বইলেন।

মামুনুল: না না, বলুম তো… তুমি বিষয়টা, মানে অন্যান্য কথা অন্যদের বলতে হইব পরিস্থিতিটা এরকম হয়ে গেছে। এখন এইজন্য তুমি আবার মাঝখান দিয়ে অন্যকিছু মনে কইরো না। তোমাকে কেউ জিজ্ঞেস করলে তুমি বইলো যে, হ্যাঁ আমি সব জানি। এরকম কিছু একটা বইলো…।

মামুনুলের স্ত্রী: ঠিকাছে।

মামুনুল: আচ্ছা আসসালামু আলাইকুম।

মামুনুল ও তার স্ত্রীর কথিত এই ফোনালাপের পুরুষ কণ্ঠ, যাকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মামুনুল হিসেবে বলা হচ্ছে, সেই পুরুষ কণ্ঠের বক্তব্যে এটি স্পষ্ট হয়ে ওঠে, রিসোর্টে যে মেয়েটি ছিলেন, তিনি তার স্ত্রী নন। তিনি শহিদুল নামে একজনের স্ত্রী। পরিস্থিতির চাপে পড়ে তাকে দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

এ বিষয়টি নিয়ে জানতে সারাবাংলার পক্ষ থেকে মামুনুল হকের ফোন নম্বরে একাধিকবার একাধিক নম্বর থেকে কল করা হলেও তিনি ফোনকল রিসিভ না করে কেটে দিয়েছেন। মামুনুল হকের স্ত্রীর মোবাইল নম্বরটি বন্ধ পাওয়া গেছে। অন্যদিকে, রিসোর্টে যে মেয়েটি ছিলেন, তার মোবাইল নম্বরে কল করা হলে তিনিও রিসিভ করেননি।

ফোনালাপটি প্রকৃতপক্ষেই মামুনুল ও তার স্ত্রীর মধ্যেকার কি না, তা অন্য কোনোভাবেও যাচাই করতে পারেনি ।

আমেনা নাকি জান্নাত?

এদিকে, ওই রিসোর্টে অবরুদ্ধ অবস্থায় মামুনুল জানিয়েছিলেন, তার সঙ্গে থাকা মেয়েটির নাম আমেনা তাইয়্যেবা। তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ওই মেয়েটিকে কেউ জিজ্ঞাসাবাদ করছেন— এমন একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে। সেই ভিডিওতে মেয়েটি বলছেন, তার নাম জান্নাত আরা ঝরনা। তার বাড়ি ফরিদপুরে। তিনিও নিজেকে মামুনুল হকের স্ত্রী বলে পরিচয় দেন। ঢাকায় মোহাম্মদপুরে থাকেন বলে জানান।

জিজ্ঞাসাবাদে জান্নাত আরা আরও বলেন, তারা বেড়াতে এসেছিলেন সোনারগাঁও এলাকায়। রেস্ট নেওয়ার জন্য রয়্যাল রিসোর্টে উঠেছিলেন।

তথ্যগুলো যাচাই করার জন্য জান্নাত আরার পরিবারের একজন সদস্যের মোবাইল নম্বরে কল করা হলে তিনিও ফোন রিসিভ করেননি।

More News Of This Category
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি