1. hmgrobbani@yahoo.com : admin :
  2. noushaduddin16@gmail.com : nowshad Uddin : nowshad Uddin
  3. news@soroborno.com : Md. Rabbani : Md. Rabbani
  4. nooruddinrasel@yahoo.com : nooruddin rasel : nooruddin rasel
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৪৬ অপরাহ্ন

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ছিনতাই মামলা, চালকের স্বীকারোক্তি

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২০ জানুয়ারী, ২০২১

রাজধানীর পুরান ঢাকার তাঁতিবাজার এলাকা থেকে এক ব্যবসায়ীর ৯০ ভরি স্বর্ণ ছিনিয়ে নেওয়ার মামলায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক এসএম সাকিব হোসেনসহ ৮ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় সাকিবের গাড়িচালক ইব্রাহিম শিকদার আজ বুধবার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। একই মামলায় অপর দুই আসামি এমদাদুল ও আলমগীরের দুইদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

বুধবার তাদের ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। আসামি ইব্রাহিম শিকদার স্বেচ্ছায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে সম্মত হওয়ায় রেকর্ড করার আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। আবেদেনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াসির আহসান চৌধুরী তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

অপরদিকে তদন্ত কর্মকর্তা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে আসামি এমদাদুল ও আলমগীরকে সাতদিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত দুই আসামির দুইদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে এ মামলায় গতকাল মঙ্গলবার সন্ধায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক এসএম সাকিব হোসেন, সোর্স হারুন ও সিপাহী আমিনুলের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

গত সোমবার জীপন পাল ও রতন কুমার দোষ স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি প্রদান করেন। ৯০ ভরি স্বর্ণ ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগে গত ১২ জানুয়ারি পুরান ঢাকার জিন্দাবাহার লেনের এক ব্যবসায়ী কোতওয়ালী থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, গত ৭ জানুয়ারি ডিবি পুলিশ পরিচয়ে কয়েক ব্যক্তি বাদীকে তুলে নিয়ে ৯০ ভরি স্বর্ণ লুট করে নিয়ে যায়। অজ্ঞাত ওই ব্যক্তিরা নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয় দেয়।

এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হলে কোতওয়ালী থানা পুলিশ প্রথমে ভুক্তভোগী ওই ব্যক্তির দুই কর্মচারীকে আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদ করে। জিজ্ঞাসাবাদে তারা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক সাকিব হোসেনের নাম জানালে সিপাহী আমিনুল ও সোর্স হারুনসহ তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ মামলায় গ্রেফতার আটজনের মধ্যে তিনজন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। অপর পাঁচ আসামি বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডে রয়েছে।

সহকারী পরিচালক সাকিব হোসেন মুন্সীগঞ্জ জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

More News Of This Category
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি