1. hmgrobbani@yahoo.com : admin :
  2. news@soroborno.com : Md. Rabbani : Md. Rabbani
মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১০:১৮ অপরাহ্ন

মেয়র আরিফকে রিকশা চালকদের বৃদ্ধাঙ্গুলি!

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২ জানুয়ারী, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক: সিলেট নগরীর কেন্দ্রস্থলের জিন্দাবাজার-বন্দরবাজার এলাকায় রিকশা, ভ্যান ও ঠেলাগাড়ি চলাচল শুক্রবার (১ জানুয়ারি) থেকে বন্ধ থাকার নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানছেন না চালকেরা। মেয়র আরিফের বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে বীরদর্পে রিকশা, ভ্যান ও ঠেলাগাড়ি চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। সিসিকের নিষেধাজ্ঞা থাকার পরেও সেই পুরোনো চিত্র দেখছেন নগরবাসী।  শনিবার (২ জানুয়ারি) সকাল থেকে জিন্দাবাজার-বন্দরবাজার-চৌহাট্টা এলাকা দেখা গেছে রিকশা-ভ্যান ও ঠেলাগাড়ির আধিক্য।

গত বছরের ডিসেম্বরের শেষ দিকে সিলেট নগরীর যানজট নিরসন ও সড়ক নিরাপত্তায় সিসিকের নিষেধাজ্ঞা মেনে চলতে কর্তৃপক্ষ মাইকিং করে প্রচার চালালেও তা কাজে আসছে না। শনিবার (২ জানুয়ারি) জিন্দাবাজার-বন্দরবাজার এলাকায় রিকশা, ভ্যান ও ঠেলাগাড়ি চলাচল করলেও দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশের কোন ভূমিকা দেখা যায়নি।

নাম প্রকাশে না করার শর্তে সিলেট নগরীর জিন্দাবাজার ও বন্দরবাজার এলাকায় সড়কের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা দুজন ট্রাফিক পুলিশ বলেন, জিন্দাবাজার-বন্দরবাজার এলাকায় রিকশা, ভ্যান ও ঠেলাগাড়ি চলাচল না করার জন্য সিসিকের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। অভিযানের বিষয়ে আমাদেরকে কেউ কিছু বলেননি। যার কারণেই এগুলো চলাচল করছে। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা পেলে আমরা অভিযান শুরু করব।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, সিসিক যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা অবশ্যই বাস্তবায়ন করা হবে। শনিবার (২ জানুয়ারি) অভিযান চালাবে সিসিক। তবে সময় বলা যাবে না, অভিযান হবে।

সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী বলেন, সিসিক পরিকল্পনা অনুযায়ি সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। পুলিশ যদি সহযোগীতা না করে তাহলে কিভাবে কাজ করা সম্ভব। সিসিকের এই সিদ্ধান্ত খুব ভালো একটি সিদ্ধান্ত ছিল। সিসিক মেয়রের সাথে এসব বিষয়ে যোগাযোগ করার জন্য পরামর্শ দেন তিনি।

সিলেট মহানগর পুলিশের উপ পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) ফয়সল মাহমুদ বলেন, সিটি করপোরেশনকে সার্বিক সহযোগীতা করা হয় পুলিশের পক্ষ থেকে। সিসিক সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ১জানুয়ারি থেকে জিন্দাবাজার-চৌহাট্টা এলাকা দিয়ে রিকশা-ভ্যান চলাচল করতে পারবেনা। সিসিক এসব বিষয়ে আমাদের সাথেও পরামর্শ করেছিল। সিসিক চাইলে যেকোন সময় ট্রাফিক পুলিশ সহযোগীতা করবে।

সিটি করপোরেশন সূত্র জানায়, জিন্দাবাজার-বন্দরবাজার থেকে চৌহাট্টা মোড় পর্যন্ত সড়কটি একমুখী (ওয়ানওয়ে) যান চলাচল থাকলেও সম্প্রতি সড়ক বিভাজক স্থাপন করে দ্বিমুখী যান চলাচলের ব্যবস্থা করে সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে। সড়ক বিভাজকের সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ এখনো চলছে। জিন্দাবাজার-বন্দরবাজার সড়ক এলাকায় সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধসহ সরকারি ও বেসরকারি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা আছে। এ ছাড়া নগরীর প্রধান প্রধান বিপণিবিতানগুলোও জিন্দাবাজারসহ আশপাশের এলাকায় অবস্থিত। পুরো এলাকার বৈদ্যুতিক খুঁটি অপসারণ করে ভূগর্ভস্থ বিদ্যুৎ সরবরাহ করে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড। এসব উন্নয়ন কার্যক্রম শেষে পুরো এলাকাকে নগরীর একটি আদর্শ এলাকায় রূপান্তর করার পরিকল্পনায় যানবাহন চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

More News Of This Category
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি