1. hmgrobbani@yahoo.com : admin :
  2. noushaduddin16@gmail.com : nowshad Uddin : nowshad Uddin
  3. news@soroborno.com : Md. Rabbani : Md. Rabbani
  4. nooruddinrasel@yahoo.com : nooruddin rasel : nooruddin rasel
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:০২ পূর্বাহ্ন

রাতে প্রথম সেমিফাইনালে লড়বে রিয়াল-চেলসি

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২১

স্পোর্টস ডেস্ক

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো রিয়াল মাদ্রিদ ছাড়ার পর এই প্রথম উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। এর আগে গত দুই মৌসুমেই শেষ ষোল থেকে বিদায় নিতে হয়েছে ১৩ বারের চ্যাম্পিয়নদের। অন্যদিকে দীর্ঘ আট বছর পর চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিতে চেলসি। মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় রাত একটায় রিয়াল মাদ্রিদের ঘরের মাঠ আলফ্রেড ডি স্টেফানোতে সেমিফাইনালের প্রথম লেগ অনুষ্ঠিত হবে।

কেবল উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালের কারণেই এই ম্যাচটি সবার নজরে থাকবে না, এছাড়াও এই ম্যাচ নিয়ে বাড়তি উত্তেজনার পেছনেও রয়েছে কারণ। এই ম্যাচ দিয়ে চেলসি থেকে রিয়ালে নাম লেখানো এডেন হ্যাজার্ড ও থিবো কোর্তোয়াকে মাঠে দেখা যাবে সাবেক ক্লাবের বিপক্ষে খেলতে। এছাড়াও ম্যানেজিং ক্যারিয়ারে জিনেদিন জিদান চেলসি কোচ থমাস তুখেলের বিপক্ষে এখন পর্যন্ত জিততে পারেনি একটি ম্যাচও।

দুই কোচের দেখা হয়েছে মোট চারবার। বিস্ময়কর হলেও সত্যি, তুখেলের বিপক্ষে কখনও জিততে পারেননি জিনেদিন জিদান। বরং একবার হেরেছেন। কোচ হিসেবে তিন বা তার বেশি ম্যাচ যাদের বিপক্ষে খেলেছেন, তাদের মধ্যে কেবল ‘তুখেল গেরো’ কখনও ছোটাতে পারেননি তিনি। রিয়াল মাদ্রিদ-চেলসি চ্যাম্পিয়নস লিগ সেমিফাইনালের আগে তাই স্বাভাবিকভাবে প্রশ্নটি উঠছে এবার তুখেলকে হারাতে পারবেন তো জিদান?

আগের চার ম্যাচের প্রতিটিতে রিয়ালের কোচ ছিলেন জিদান। তুখেল ছিলেন বরুশিয়া ডর্টমুন্ড ও পিএসজির দায়িত্বে। দুজনের প্রথম দেখা হয় ২০১৬-১৭ মৌসুমের গ্রুপ পর্বে। দুই লেগেই বরুশিয়ার বিপক্ষে জয়ের পথে ছিল রিয়াল, কিন্তু শেষ পর্যন্ত দুটি ম্যাচই শেষ হয়েছিল ২-২ ড্রয়ে।

২০১৯-২০ মৌসুমে ফের গ্রুপ পর্বে দেখা হয় দুজনের। প্রথম লেগে নিজেদের মাঠে জিদানের রিয়ালকে ৩-০ গোলে উড়িয়ে দেয় তুখেলের পিএসজি। ফিরতি লেগের ম্যাচ হয় ২-২ ড্র; এই ম্যাচে দুই গোলে এগিয়ে থেকে জয়ের ঘ্রাণ পাচ্ছিল রিয়াল, কিন্তু শেষ দিকে কিলিয়ান এমবাপে ও পাবলো সারাবিয়ার লক্ষ্যভেদে ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়ে ফ্রান্সের দলটি।

রিয়ালের দায়িত্ব নেওয়ার পর এ পর্যন্ত ৩৫ কোচের বিপক্ষে তিন বা তার বেশি ম্যাচ খেলেছেন জিদান। সাফল্য নেই কেবল তুখেলের বিপক্ষে। তিন বা তার বেশি ম্যাচে মুখোমুখি হয়েও কেবল জার্মান এই কোচের বিপক্ষে জিততে পারেননি তিনি।

অবশ্য চলতি মৌসুমের বাকি পথচলায় জিদানের সামনে আরও চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে। সেমিফাইনালে ওঠা বাকি দুই দল ম্যানচেস্টার সিটির কোচ পেপ গার্দিওলা এবং পিএসজির কোচ মাউরিসিও পচেত্তিনোর বিপক্ষেও কখনও জেতা হয়নি রিয়ালের হয়ে হ্যাটট্রিক চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ী কোচ জিদানের!

এদিকে ইউরোপিয়ান সুপার লিগে নাম লেখানোয় রিয়াল মাদ্রিদ ও চেলসির মধ্যে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ম্যাচ নিয়ে যে অনিশ্চয়তা জেগেছিল, তা কেটে গেছে। মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে নতুন গুঞ্জন, আলোচিত এই লিগ থেকে সরে না দাঁড়ানোর খেসারত হয়তো মাঠে দিতে হবে রিয়ালকে। রেফারির পক্ষপাতমূলক আচরণের শিকার হতে পারে তারা। তবে তা নিয়ে মোটেই চিন্তায় নেই জিনেদিন জিদান। রিয়াল মাদ্রিদের কোচের ভাবনাজুড়ে কেবল মাঠের প্রস্তুতি।

শুরু থেকেই উয়েফার ও এর সহযোগী সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে কড়া ভাষায় বলা হচ্ছিল, সুপার লিগে খেললেই পেতে হবে অন্য সব প্রতিযোগিতা থেকে নিষেধাজ্ঞা। তবে শেষ পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা আসেনি কিন্তু হুঁশিয়ারি বার্তা নিয়মিতই আসছে রিয়াল মাদ্রিদের দিকে। এসবের ভিড়ে স্প্যানিশ গণমাধ্যমে ঘুরপাক খাচ্ছে আরেকটি বিষয়, বর্তমানের জটিল পরিস্থিতিতে চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচে রেফারি প্রভাবিত হয়ে রিয়ালের বিপক্ষে সিদ্ধান্ত দেবে না তো!

তবে জিনেদিন জিদান এসব নিয়ে মোটেও ভাবছেন না। তিনি জানালেন, ‘আমাদের কাছে একমাত্র গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, মাঠে কী হয়। রেফারি তার কাজ করবে এবং আমরা কেবল ফুটবল খেলা নিয়েই ভাবছি। (গত কদিনে বা এই ম্যাচ ঘিরে) যা কিছু বলা হচ্ছে, সেসব নিয়ে যদি ভাবতে শুরু করি, যদি চিন্তা করি এসব আমাদের বিপক্ষে যাবে এবং আমাদের শাস্তি পেতে হবে, তাহলে আমাদের কাজে আমরা গড়বড় করে ফেলব। আমরা এই ম্যাচে ৯০ মিনিট লড়াই করব এবং বাকি কোনো বিষয়ে জড়াব না।’

রিয়াল মাদ্রিদের সম্ভাব্য একাদশ:

গোলরক্ষক: থিবো কোর্তোয়া

রক্ষণভাগ: দানি কার্ভাহাল, এডার মিলিতাও, রাফায়েল ভারান এবং নাচো ফার্নান্দেজ।

মধ্যমাঠ: টনি ক্রুস, ক্যাসেমিরো এবং লুকা মদ্রিচ।

আক্রমণভাগ: ভিনিসিয়াস জুনিয়র, মার্কো অ্যাসেন্সিও এবং করিম বেনজেমা।

চেলসির সম্ভাব্য একাদশ:

গোলরক্ষক: এডুয়ার্ড মেন্ডি

রক্ষণভাগ: থিয়াগো সিলভা, অ্যান্তোনিও রুডিগার, চেজার আজিপিলিকুয়েটা, জেমস রিচ এবং বেন চিলওয়েল।

মধ্যমাঠ: এনগোলো কান্তে, জর্জিনিও এবং মেসন মাউন্ট।

আক্রমণভাগ: কাই হার্ভাটজ এবং টিমো ভার্নার।

More News Of This Category
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি