1. hmgrobbani@yahoo.com : admin :
  2. noushaduddin16@gmail.com : nowshad Uddin : nowshad Uddin
  3. news@soroborno.com : Md. Rabbani : Md. Rabbani
  4. nooruddinrasel@yahoo.com : nooruddin rasel : nooruddin rasel
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:১৩ পূর্বাহ্ন

শেষের পথে ভ্যাকসিনের মজুত

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৩ মে, ২০২১

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: নভেল করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের ভ্যাকসিন প্রয়োগ কার্যক্রমে জাতীয় পর্যায়ে প্রয়োগ করা হচ্ছে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন। ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে আনা ১ কোটি ২ লাখ ৪ হাজার কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন প্রায়ই শেষের পথে। মজুত আছে আর মাত্র চার লাখ ১১ হাজার ৮৭০ ডোজ। শিগগিরই ভ্যাকসিন আমদানি করা না গেলে ব্যাহত হবে ভ্যাকসিন প্রয়োগ কার্যক্রম। ব

স্বাস্থ্য অধিদফতরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ভ্যাকসিনের পরিবহন থেকে শুরু করে প্রয়োগের বিভিন্ন ধাপে এক শতাংশ ভ্যাকসিন নষ্ট হতে পারে। সেই হিসেবে বর্তমান মজুত থেকে আরও এক লাখের মতো ভ্যাকসিন কমে যাওয়ার আশংকাও রয়েছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে নতুন করে ভ্যাকসিনের সংস্থান নাহলে দ্রুতই দেশে ভ্যাকসিন প্রয়োগ কার্যক্রম বন্ধ হতে যাচ্ছে।

সম্প্রতি চীন থেকে পাঁচ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন এলেও সেটি পূর্বে নিবন্ধিতদের দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। তবে স্বাস্থ্য অধিদফতর বলছে, যারা বাদ পড়ছেন ভ্যাকসিন আসলে তাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রয়োগ করা হবে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম (এমআইএস) বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমানের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, দেশে এখন পর্যন্ত ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেছেন ৩৯ লাখ ৭২ হাজার ২১৮ জন। প্রথম ডোজের ভ্যাকসিন নিয়েছেন ৫৮ লাখ ১৯ হাজার ৯১২ জন। নিবন্ধন করেছেন ৭২ লাখ ৪৮ হাজার ৮২৯ জন।

ওই হিসেব অনুযায়ী, এখনো ১৮ লাখ ৮৯ হাজার ১৬১ জনের দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিন নেওয়া বাকি। গাণিতিক হিসেবে ভ্যাকসিনের মজুত হিসেবে এদের মাঝে চার লাখ ৫৩ হাজার ৩৩৭ জনকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া সম্ভব। অর্থাৎ দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিন পাবে না প্রথম ডোজ পাওয়া ১৪ লাখ ৩৫ হাজার ৮২৪ জন।

বিজ্ঞপ্তিতে দেখা যায়, গতকাল শনিবার (২২ মে) চুয়াডাঙ্গা, নড়াইল, পাবনা, নাটোর, চাঁদপুর, খাগড়াছড়ি ও গাজীপুর জেলায় ভ্যাকসিন দেওয়া হয়নি।

দেশে গত ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে জাতীয় পর্যায়ে ভ্যাকসিন প্রয়োগ কার্যক্রম শুরু হয়। ৮ এপ্রিল থেকে দেশে ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু হয়।

ভ্যাকসিন প্রয়োগ কেন্দ্রের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন কবে আসবে তেমন কোনো নিশ্চয়তা না থাকায় আপাতত কার্যক্রম সীমিত আকারে চালানো হচ্ছে।

ভ্যাকসিনের পরিসংখ্যান জানিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মুখপাত্র ডা. রোবেদ আমিন বলেন, ইতোমধ্যেই যারা প্রথম ডোজ ভ্যাকসিন নিয়েছেন সেই সংখ্যার বিপরীতে বর্তমানে এই মুহূর্তে ১৪ লাখ ৩৯ হাজার ৫১৪ ডোজ ভ্যাকসিনের ঘাটতি রয়েছে। সময় মতো ভ্যাকসিন না আসলে প্রথম ডোজ নেওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে ১৪ লাখ ৩৯ হাজার ৫১৪ জন দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিন পাবেন না।

ভ্যাকসিন সংকটের কারণে গত ২৬ এপ্রিল থেকে প্রথম ডোজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের এমএনসিঅ্যান্ডএইচ শাখার লাইন ডিরেক্টর ডা. মো. শামসুল হক সারাবাংলাকে বলেন, বর্তমানে যে পরিমাণ ভ্যাকসিন আছে তা যদি দৈনিক গড়ে ৫০ হাজার ডোজ করে দেওয়া হয় সেক্ষেত্রে আরও সাত আটদিন চালানো যেতে পারে। কিন্তু সেক্ষেত্রে এটার সংখ্যা যদি বাড়ে তবে আরও আগে শেষ হবে। কারণ সব জায়গায় ভ্যাকসিন প্রয়োগ একই মাত্রাতে হয় না। রেশনিং করে যতদিন চালানো যায় ততদিন চালানো হবে।

তিনি বলেন, বর্তমানে আমাদের অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার পেটেন্টের ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। এই ভ্যাকসিন আন্তর্জাতিকভাবে ১২ সপ্তাহ থেকে ১৬ সপ্তাহ সময়ে দেওয়া যায় বলে জানানো হয়েছে। আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে যারা প্রথম ডোজ নেওয়ার পরে দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার গ্যাপে পড়েছেন বা এই মুহূর্তে পাচ্ছেন না তারা সেই সময়টা অপেক্ষা করার একটা সুযোগ পাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, এই সময়েই যদি আমরা ভ্যাকসিন পেয়ে যাই তবে দেওয়া যাবে। আমরা আসলে সবাইকে আশ্বস্ত করতে চাই যে সবাই ভ্যাকসিন পাবে। যখনই আসবে তখনই দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিন পাবে। এক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছেন। উনার সার্বিক তত্ত্বাবধানেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

এ দিকে খুব দ্রুত ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজের ঘাটতি পূরণে কাজ করে যাচ্ছে সরকার। ভারতের সঙ্গে সরকারি পর্যায়ে কথা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল মোমেন। একই সময় তিনি উপহার হিসেবে হলেও ভ্যাকসিন দেওয়ার আহ্বান জানান। এদিকে বিভিন্ন পর্যায়ে যুক্তরাষ্ট্র-কানাডাকে ভ্যাকসিন দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে সরকার।

পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগের দিন ১৩ মে জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সবচেয়ে কার্যকর ও পরীক্ষিত অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন দিয়েই দেশে ভ্যাকসিন প্রয়োগ কার্যক্রম শুরু হয়। ভারতীয় কর্তৃপক্ষ ভ্যাকসিন রফতানির ওপর সাময়িক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে, সেই কারণে সরবরাহ ব্যবস্থায় কিছুটা সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে।

তিনি বলেন, রাশিয়া ও চীনের ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী সংস্থার সঙ্গে বাংলাদেশের আলোচনা চলছে। উপহার হিসেবে চীনের ভ্যাকসিন এসেছে। ভ্যাকসিন পাওয়ার ব্যাপারে আমেরিকার কাছেও অনুরোধ জানানো হয়েছে। কোভ্যাক্সের কাছ থেকেও বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য পরিমাণ ভ্যাকসিন পাবে।

উল্লেখ্য, দেশে ইতোমধ্যেই চীন থেকে পাঁচ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন এসেছে। ২৫ মে থেকে এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্র জানিয়েছে, এই ভ্যাকসিনগুলো বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীসহ নার্সিং ইনস্টিটিউট, নার্সিংয়ের শিক্ষার্থীদের প্রয়োগের পরিকল্পনা করা হয়েছে। এছাড়াও পুলিশ বাহিনীর নির্ধারিত সংখ্যক সদস্য ও বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত ব্যক্তিরাও পাবেন চীনের সিনোফার্মার ভ্যাকসিন। তবে এক্ষেত্রে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পাওয়া ভ্যাকসিন গ্রহণের জন্য আলাদাভাবে সবাইকে ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন সুরক্ষায় নিবন্ধন করতে হবে।

More News Of This Category
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি