1. hmgrobbani@yahoo.com : admin :
  2. noushaduddin16@gmail.com : uddin : uddin uddin
  3. news@soroborno.com : Md. Rabbani : Md. Rabbani
  4. nooruddinrasel@yahoo.com : nooruddin rasel : nooruddin rasel
  5. sultansumon2050@gmail.com : Sultan Sumon : Sultan Sumon
বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০২:০৭ পূর্বাহ্ন

তাহিরপুরে আড়াই’শ কোটি টাকার বোরো ফসল রক্ষায় উৎকণ্ঠা কৃষকরা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় ছোট বড় ২৩টি হাওরের বোরো ফসল রক্ষায় ৮২টি বাঁধের কাজ ২৮ ফ্রেরুয়ারীর মধ্যে সম্পূর্ণ শেষ করার সরকারি নির্দেশ থাকলেও ২১শে ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত ৪০ পাসেন্ট বাঁধের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বাঁধ নির্মানে এবারও ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ফলে একটি মাত্র বোরো ফসলের উপর নির্ভরশীল উপজেলার লক্ষ লক্ষ কৃষক বোরো ফসল রক্ষায় উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে।


এদিকে, হাওরে নির্মিত বেরী বাঁধ কৃষকদের ফসল রক্ষার্থে কোন উপকারে না আসলেও বাঁধ নির্মাণের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিদের পকেট ভারী হয়েছে। এছাড়াও প্রতিটি বাঁধে অতিরিক্ত বরাদ্দ দেওয়া ও উপজেলার স্থানীয় আ’লীগের কতিপয় নেতার ছত্রছায়ায় অনেক পিআইসিরা বাঁধের কাছ থেকেই মাটি কাটাসহ সরকারী সকল নিয়মভঙ্গ করে বাঁধ নির্মান করেছে বলে অভিযোগ করেন উপজেলার সচেতন মহল।  https://googleads.g.doubleclick.net/pagead/ads?guci=2.2.0.0.2.2.0.0&client=ca-pub-9297493780021522&output=html&h=280&adk=91146109&adf=3130211040&pi=t.aa~a.148600082~i.3~rp.4&w=730&fwrn=4&fwrnh=100&lmt=1613935739&num_ads=1&rafmt=1&armr=3&sem=mc&pwprc=1194519437&psa=1&ad_type=text_image&format=730×280&url=https%3A%2F%2Fsylhetsun.com%2Fmain%2Farticle%2F5443&flash=0&fwr=0&pra=3&rh=183&rw=730&rpe=1&resp_fmts=3&wgl=1&fa=27&adsid=NT&dt=1613935738992&bpp=7&bdt=1448&idt=-M&shv=r20210211&cbv=r20190131&ptt=9&saldr=aa&abxe=1&cookie=ID%3D4601cc9a4585b721-2290e11910c50022%3AT%3D1607282452%3ART%3D1607282452%3AS%3DALNI_MbFz7cIzYDsNH5_5q5pWBcG06hDYw&prev_fmts=0x0%2C1200x280&nras=3&correlator=4678457599255&frm=20&pv=1&ga_vid=222285904.1613935739&ga_sid=1613935739&ga_hid=1993035251&ga_fc=0&u_tz=360&u_his=5&u_java=0&u_h=768&u_w=1366&u_ah=728&u_aw=1366&u_cd=24&u_nplug=0&u_nmime=0&adx=120&ady=1531&biw=1349&bih=654&scr_x=0&scr_y=0&eid=42530672%2C182982000%2C182982200%2C21068496%2C21068769%2C21068893&oid=3&pvsid=1217739990592881&pem=180&ref=https%3A%2F%2Fsylhetsun.com%2F&rx=0&eae=0&fc=1408&brdim=-8%2C-8%2C-8%2C-8%2C1366%2C0%2C1382%2C744%2C1366%2C654&vis=1&rsz=%7C%7Cs%7C&abl=NS&fu=8320&bc=31&ifi=3&uci=a!3&btvi=1&fsb=1&xpc=5AGAcK0LA2&p=https%3A//sylhetsun.com&dtd=30


অভিযোগ উঠেছে, কোন কোন বাঁধে পিআইসিরা বাঁধের উপর থাকা গাছ-পালা কেটে পরিস্কার না করেই বাঁধের দুই পাশ থেকে মাটি উত্তোলন করে কোন রকম দায়সারা ভাবে এলোমেলো ভাবে ফসল রক্ষা বাঁধের ওপর মাটি দিয়ে বেরী বাঁধ নির্মান করেছে। বাঁধে কোন সাইন বোর্ড নেই। অনেক বাঁধে পুরোটাই বালি ব্যবহার করা হয়েছে। কোথাও কোথাও শুধু মাত্র বাঁধের উপরের অংশে লোক দেখানো দুরমুজ করেছেন দু-একজন পিআইসি। সঠিকভাবে নিদির্ষ্ট দূরত্ব থেকে মাটি এনে বাঁশ দিয়ে প্রতিরক্ষা বাঁধ দেওয়া নিয়ম থাকলেও এখানে তা কেউ মানছেন না। ফলে প্রতিটি বাঁধেই ঝুঁকিপূর্ণ বৃষ্টির পানি ও সামান্য পাহাড়ী পানির ঢলের চাপে বাঁধ ভেঙ্গে পানি হাওরে প্রবেশ করবে দাবি বাঁধের পাশে থাকা কৃষকদের।


উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার হাওরগুলোতে ১৭৯৮০ হাজার হেক্টরের বেশী বোরো জমিতে চাষাবাদ হয়েছে। এতে ৮০ হাজার মেট্রিক টনের বেশি চাল উৎপাদন হবে। এর মূল্য ২শ ৪৪ কোটি ৮০ লাখ টাকার বেশী।https://googleads.g.doubleclick.net/pagead/ads?guci=2.2.0.0.2.2.0.0&client=ca-pub-9297493780021522&output=html&h=280&adk=91146109&adf=4272171823&pi=t.aa~a.148600082~i.7~rp.4&w=730&fwrn=4&fwrnh=100&lmt=1613935739&num_ads=1&rafmt=1&armr=3&sem=mc&pwprc=1194519437&psa=1&ad_type=text_image&format=730×280&url=https%3A%2F%2Fsylhetsun.com%2Fmain%2Farticle%2F5443&flash=0&fwr=0&pra=3&rh=183&rw=730&rpe=1&resp_fmts=3&wgl=1&fa=27&adsid=NT&dt=1613935738992&bpp=3&bdt=1448&idt=-M&shv=r20210211&cbv=r20190131&ptt=9&saldr=aa&abxe=1&cookie=ID%3D4601cc9a4585b721-2290e11910c50022%3AT%3D1607282452%3ART%3D1607282452%3AS%3DALNI_MbFz7cIzYDsNH5_5q5pWBcG06hDYw&prev_fmts=0x0%2C1200x280%2C730x280&nras=4&correlator=4678457599255&frm=20&pv=1&ga_vid=222285904.1613935739&ga_sid=1613935739&ga_hid=1993035251&ga_fc=0&u_tz=360&u_his=5&u_java=0&u_h=768&u_w=1366&u_ah=728&u_aw=1366&u_cd=24&u_nplug=0&u_nmime=0&adx=120&ady=2179&biw=1349&bih=654&scr_x=0&scr_y=0&eid=42530672%2C182982000%2C182982200%2C21068496%2C21068769%2C21068893&oid=3&pvsid=1217739990592881&pem=180&ref=https%3A%2F%2Fsylhetsun.com%2F&rx=0&eae=0&fc=1408&brdim=-8%2C-8%2C-8%2C-8%2C1366%2C0%2C1382%2C744%2C1366%2C654&vis=1&rsz=%7C%7Cs%7C&abl=NS&fu=8320&bc=31&ifi=4&uci=a!4&btvi=2&fsb=1&xpc=26OsemFlPx&p=https%3A//sylhetsun.com&dtd=42


জানা যায়, উপজেলার টাঙ্গুয়ার হাওর,শনির হাওর, মাটিয়ান হাওর, বোয়ালমারা, সমসা, নজরখালি, মহালিয়া, লোভার হাওর, বলদার হাওরসহ বিভিন্ন হাওরের অধিকাংশ বাঁধে এসকোভেটর দিয়ে এলোমেলো ভাবে বাঁধের পাশ থেকে মাটি বাঁধেই ফেলা হয়েছে। একটি বাঁধে ও নীতিমালা মানা হয়নি। উপজেলার দক্ষিন শ্রীপুর ও উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের প্রতিটি পিআইসির বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। আর উপজেলায় পানি উন্নয়নে দায়িত্বে থাকা এসও রাকিবুল ইসলাম পিআইসিদের সাথে সখ্যকতা থাকায় তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে স্থানীয় কৃষকগন।


এদিকে, উপজেলায় পানি উন্নয়নে দায়িত্বে থাকা এসও রাকিবুল ইসলাম জানান, ২১ ফ্রেরুয়ারী পর্যন্ত ৪০ ভাগ কাজ হয়েছে। বোরো ফসল রক্ষায় সরকার হাওরের ৮২টি বেরী বাঁধের (৭৩ কিলোমিটার) নির্মানে ১৪ কোটি ৩৩ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। বাঁধে অনিয়মের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, এখনও পর্যন্ত কোন অনিয়মের অভিযোগ পাইনি। পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।https://googleads.g.doubleclick.net/pagead/ads?guci=2.2.0.0.2.2.0.0&client=ca-pub-9297493780021522&output=html&h=280&adk=91146109&adf=3533913583&pi=t.aa~a.148600082~i.11~rp.4&w=730&fwrn=4&fwrnh=100&lmt=1613935739&num_ads=1&rafmt=1&armr=3&sem=mc&pwprc=1194519437&psa=1&ad_type=text_image&format=730×280&url=https%3A%2F%2Fsylhetsun.com%2Fmain%2Farticle%2F5443&flash=0&fwr=0&pra=3&rh=183&rw=730&rpe=1&resp_fmts=3&wgl=1&fa=27&adsid=NT&dt=1613935738978&bpp=1&bdt=1434&idt=1&shv=r20210211&cbv=r20190131&ptt=9&saldr=aa&abxe=1&cookie=ID%3D4601cc9a4585b721-2290e11910c50022%3AT%3D1607282452%3ART%3D1607282452%3AS%3DALNI_MbFz7cIzYDsNH5_5q5pWBcG06hDYw&prev_fmts=0x0%2C1200x280%2C730x280%2C730x280%2C350x280&nras=6&correlator=4678457599255&frm=20&pv=1&ga_vid=222285904.1613935739&ga_sid=1613935739&ga_hid=1993035251&ga_fc=0&u_tz=360&u_his=5&u_java=0&u_h=768&u_w=1366&u_ah=728&u_aw=1366&u_cd=24&u_nplug=0&u_nmime=0&adx=120&ady=2547&biw=1349&bih=654&scr_x=0&scr_y=0&eid=42530672%2C182982000%2C182982200%2C21068496%2C21068769%2C21068893&oid=3&pvsid=1217739990592881&pem=180&ref=https%3A%2F%2Fsylhetsun.com%2F&rx=0&eae=0&fc=1408&brdim=-8%2C-8%2C-8%2C-8%2C1366%2C0%2C1382%2C744%2C1366%2C654&vis=1&rsz=%7C%7Cs%7C&abl=NS&fu=8320&bc=31&ifi=5&uci=a!5&btvi=4&fsb=1&xpc=4nskR1TSg7&p=https%3A//sylhetsun.com&dtd=310


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কৃষকগন জানান, হাওরের ৮২টি বেরী বাঁধ নির্মাণে সরকারি নির্দেশ বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি(পিআইসি)বিলম্বে ও দায়সারা ভাবে কাজ শুরু করা ও সঠিকভাবে পিআইসিদের মনিটরিং না করা এছাড়াও উপজেলার স্থানীয় আ’লীগের কতিপয় নেতার ছত্রছায়ায় অনেক পিআইসিরা বাঁধ নির্মান করেছে। বাঁধ নির্মানে যথেষ্ট সময় এবং সুযোগ পাওয়ার পরও কাজ করতে পারেনি। তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।  
উপজেলার শনি ও মাটিয়ান হাওরের কৃষক রফিকুল, সাদেক, সালাম মিয়া, কাদির মিয়া, জামাল উদ্দিনসহ আরো অনেকেই বলেন, নিজেদের আখের গোছানোর জন্যেই সময় মত বাঁধ নির্মাণ হয়নি। তাছাড়া দুর্নীতির কারণে প্রতি বছরই ৪০ভাগ কাজ হয় না। ফলে সামান্য পাহাড়ী ঢলের পানিতে বাঁধগুলো ভেঙ্গে হাওরগুলো ডুবে যায়। আমরা এবারও বোরো ফসল হারানোর আতঙ্কে আছি।


তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহ জানান, আমি সরেজমিন বিভিন্ন হাওরে যাচ্ছি বাঁধের কাজে কোন রখম অনিয়ম না হয়। সকল পিআইসিদেরকে দ্রুত বাঁধের কাজ শেষ করার জন্য তাগিদ দিয়েছি। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে সতর্ক করা হয়েছে।


সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন নির্বাহী প্রকৌশলী সাবিবুর রহমান বলেন, প্রতিটি বাঁধেই দ্রুত কাজ করার কথা বলা হয়েছে পিআইসিদের। যারা সরকারী নীতিমালা অমান্য করবে তাদের বিরুদ্ধে লিখিতভাবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

More News Of This Category
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি