1. hmgrobbani@yahoo.com : admin :
  2. noushaduddin16@gmail.com : uddin : uddin uddin
  3. news@soroborno.com : Md. Rabbani : Md. Rabbani
  4. nooruddinrasel@yahoo.com : nooruddin rasel : nooruddin rasel
  5. sultansumon2050@gmail.com : Sultan Sumon : Sultan Sumon
রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ১২:২৫ অপরাহ্ন

মামুনুলকে কেন গ্রেফতার করা যাচ্ছে না?— প্রশ্ন সাধারণ মানুষের

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১১ এপ্রিল, ২০২১

ঢাকা: যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাবেক সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট ও যুবলীগ নেতা খালেদসহ বড় বড় নেতাদের নামে কোনো মামলা না থাকলেও শুধুমাত্র ক্যাসিনো কাণ্ডে নাম আসার কারণে একে একে সবাই আটক হয়। এরপর তাদের নামে বিভিন্ন অপরাধে করা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। তাদের সবাই এখন কারাগারে রয়েছেন। অথচ হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের নামে একাধিক মামলা হলেও এখনো ধরা-ছোঁয়ার বাইরে রয়েছেন তিনি। পুলিশ নাকি তাকে খুঁজে পাচ্ছে না। মামুনুল হক গ্রেফতার না হওয়ায় সাধারণ মানুষের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। সাধারণ মানুষের জিজ্ঞাসা, মামুনুল হক কি আইনের ঊর্ধ্বে? মামুনুল হককে কেন গ্রেফতার করা যাচ্ছে না?

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মতিঝিল জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার এনামুল হক মিঠু রোববার (১১ এপ্রিল) বলেন, ‘কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়। মামুনুলকে অবশ্যই গ্রেফতার করা হবে। তাকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। যেখানেই পাওয়া যাবে তাকে গ্রেফতার করা হবে। একাধিক টিম তাকে ধরতে মাঠে কাজ করছে।’

মামুনুল কি অনেক ক্ষমতাধারী? জানতে চাইলে ফ্যামিনিস্ট ফ্যাক্টরের সম্পাদক শারমিন শামস সারাবাংলাকে বলেন, ‘সবার আগে বলব, মামুনুল হক অনেক শক্তিশালী। এই ক্ষমতাবান শক্তিশালী লোককে পুলিশ ধরবে কেন? এটা তো সাধারণ মানুষের প্রশ্ন থাকবেই। আমরা সবাই জানি, অনেকদিন ধরেই হেফাজতের সঙ্গে সরকার একটা কৌশলগত অবস্থান তৈরি করেছে। সরকার হয়তো রাজনৈতিকভাবে সুবিধা পেয়েছে। কিন্তু তাতে অনেক ক্ষতি হয়েছে। এই মামুনুলরা যে ক্ষমতাশালী হয়ে উঠল, এখন তার দায় কে নেবে?’

তিনি বলেন, ‘ক্ষমতার দাপটে নারীদের জিম্মি করে ফায়দা লুটেছে। ধর্মের দোহাই দিয়ে যা ইচ্ছে তাই করছে। এরকম কত নারী যে তাদের হাতে জিম্মি, তা কে জানে? ওই নারী তো একবারও বলছে না যে, মামুনুল তাকে বিয়ে করেছে। বরং বারবার কী প্রমাণ হচ্ছে, তাদের মধ্যে কোনো বৈধ সম্পর্ক-ই নেই। ওই নারীকে বহু বছর ধরে টর্চার করে আসছে। এরপরেও বিচার যদি না হয় তাহলে বুঝতে হবে, তাদের কিছুই হবে না। এতে তারা আরও বেশি ক্ষমতাধর হয়ে উঠবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভাবছিলাম হেফাজত থেকে একটা কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে মামুনুলের বিরুদ্ধে। কিন্তু আমরা কী দেখলাম- বিষয়টি মামুনুলের ব্যক্তিগত উল্লেখ করেছেন বাবুনগরী। এতে কি হলো, অপরাধ করলেও পার পাওয়া যায় এবং কিছুই হয় না- এটা প্রমাণ হয়ে গেল। ফলে আরও যারা মামুনুল আছে বা ভবিষ্যতে যারা মামুনুল হয়ে উঠবে, তারা আরও সাহস পাবে। তাদের কিছুই হবে না। এতে অনেক নারীর সর্বনাশে মেতে উঠবে তারা। তাকে গ্রেফতার না করলে এটাই প্রমাণ হবে যে, সরকারের ছত্রছায়ায় মামুনুলরা আরও বেশি ডেসপারেট হয়ে উঠেছে। যেটা ভবিষ্যতের জন্য অশনি সংকেত।’

সাধারণ মানুষ যা বলছে

রোববার দুপুর ১২টা। রাজধানীর দয়াগঞ্জে মোড়ের একটি পান দোকান। চারজনের মধ্যে দুজনের দাঁড়ি টুপি আছে। দোকানদার তাদের কাছে জানতে চাইলেন, মামুনুল কি গ্রেফতার হয়েছে? জবাবে এক হুজুর বললেন, ‘মামুনুল খুবই খারাপ কাজ করেছেন। ওই নারীকে বিয়ে না করেই রিসোর্টে নিয়ে গেছেন। এক রাতেই বাঘ বিড়াল হয়ে গেছে। এখন দেখেন গ্রেফতার হয় কিনা? আমরাও দেখতে চাই, মামুনুল কতদিন আইনের বাইরে থাকেন?’- প্রশ্ন ওই দুই হুজুরের। অন্য দুজন বলেন, ‘মামুনুলকে নাকি পুলিশ খুঁজে পাচ্ছে না। নাকি কোনো গোয়েন্দা সংস্থা নিয়ে গেছে?’ আবার একজন বলেন, ‘সরকারের কাছেই রয়েছে মামুনুল হক। তাছাড়া কেন তাকে খুঁজে পাওয়া যায় না। পুলিশ পারে না এমন কিছু আছে?’

দুপুর সাড়ে ১২টা। মতিঝিল ব্যাংক পাড়া। ইসলামী ব্যাংকের সামনে দাঁড়ানো বেশকয়েকজন লোক। মামুনুল হককে নিয়ে শুরু হলো গল্প। কেউ বলছেন, ‘আর লাইভে আসেন না ক্যান মামুনুল। সে কি গ্রেফতার হয়েছে?’ অন্যজন বলেন, ‘সরকার এবার তার সঙ্গে আঁতাত করছে। মাঝখান থেকে ইসলামের বড় একটা ক্ষতি হয়ে গেল। এই মামুনুলদের কারণে সব হুজুরদের খারাপ চোখে দেখা হচ্ছে। আসলে কি সব হুজুর খারাপ? তাতো না। অন্যজন বলেন, ‘দেখা যাক কী হয়। গ্রেফতার হয় কি না মামুনুল।’

বিকেল ৪টা। কাকরাইল এলাকা। মামুনুলকে নিয়ে কয়েকজন তর্কে মেতেছেন। দাঁড়িয়ে পড়লাম। দেখলাম তর্ক নয় বরং তারা বলছেন, সম্রাটের নামে কোনো মামলা ছিল না। ক্যাসিনো কাণ্ডেও তার সরাসরি কোনো ভূমিকা ছিল না। ক্যাসিনো নিয়ে তার নামে পরবর্তী সময়ে কোনো মামলা হয়নি। খালেদের নামেও কোনো মামলা ছিল না। এছাড়া ক্যাসিনো কাণ্ডে আরও অনেককে গ্রেফতার হয়েছেন, যাদের নামে কোনো মামলাই ছিল না। এরপরেও আইন শৃঙ্খলা অভিযান চালিয়েছে এবং গ্রেফতার করে মামলা দিয়েছে। এখন তারা জেলের জীবন কাটাচ্ছেন। কিন্তু হেফাজতের নেতা কি কাণ্ডটাই না করলেন! একটি অপরাধ করার পর সেটি ঢাকতে গিয়ে আরও কত অপরাধ করেই চলেছেন।

তাদের মধ্যে একজন বলতে থাকেন, মামুনুলের অনুসারীরা রিসোর্টে হামলা চালিয়ে তছনছ করেছে। বায়তুল মোকাররমে স্বাধীনতা দিবসে কি তাণ্ডবটাই না করল। একাধিক মামলায় মামুনুল এখন প্রধান আসামি। অথচ তাকে গ্রেফতার করা যাচ্ছে না। এটা সবাই বোঝে যে, মামুনুল সরকারের সঙ্গে আঁতাত করেছে। না হলে এতদিনেও গ্রেফতার হয় না?- এটা কি কেউ বিশ্বাস করবে?

More News Of This Category
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি